বৃহস্পতিবার, আগস্ট ১৩, ২০২০

রাতে নৌ চলাচল বন্ধ থাকায় আরিচা ঘাটে আটকে পড়া যাত্রীদের চরম দুর্ভোগ

  • শাহজাহান বিশ্বাস, মানিকগঞ্জ
  • ২০২০-০৭-৩০ ২৩:৫৩:৩৮
image

মানিকগঞ্জের শিবালয়ের আরিচা ঘাটে পাবনাসহ উত্তর-পশ্চিমাঞ্চলগামী আটকে পড়া যাত্রীদেরকে অবর্ণনীয় দুর্ভোগ পোহাতে হচ্ছে। রাজধানী ঢাকাসহ আশপাশের এলাকা থেকে আসা যাত্রীরা আরিচা ঘাটে এসে আটকে পড়েছে। সন্ধ্যার পর আরিচা-কাজিরহাট নৌরুটে লঞ্চ-স্পিডবোটসহ সকল ধরনের নৌ যানজান চলাচল বন্ধ থাকায় আরিচা ঘাটে আটকে পড়েছে শত শত ঘরমুখী যাত্রীরা। রাতের বেলায় বিশেষ ব্যবস্থায় লঞ্চ না ছাড়লে  আরিচা ঘাটে রাত্রী যাপন করতে হবে বলে অনেক যাত্রীরা জানিয়েছেন। সারা রাস্তা দৌড়া-দৌড়ি খেঁয়া ঘাটে  গড়াগড়ি এ অবস্থা হয়েছে এসব যাত্রীদের। দীর্ঘ দিনের এরকম দুর্ভোগ লাঘবে আরিচা-কাজিরহাট নৌরুটে ফেরি চলাচলের দাবী জানিয়েছে আটকে পড়া এসব যাত্রীরা। 

জানা গেছে, আরিচা-কাজিরহাট নৌরুটে স্পিডবোট সার্ভিস চালু হওয়ার পর যাত্রী চলাচল বেড়েছে। এছাড়া বঙ্গবন্ধু সেতু এলাকায় যানজট সৃষ্টি হওয়ায় ওই রুটের উত্তর অঞ্চলের অনেক যাত্রী এখন আরিচা-কাজিরহাট নৌরুটে চলাচল করছে। এ রুটে ১২/১৩টি লঞ্চ এবং আরিচা থেকে ৪০/৪২টি স্পিডবোটে যাত্রী পারাপার করছে। সকাল ৭টা থেকে সন্ধ্যা ৬টা পর্যন্ত লঞ্চ এবং সকাল থেকে সন্ধ্যা ৭টা পর্যন্ত স্পিডবোট চলাচল করে থাকে। রাতের বেলায় ঝুকিপূর্ণ হওয়ায় আরিচা-কাজিরহাট নৌরুটে লঞ্চ-স্পিডবোটসহ সকল ধরনের নৌযান চলাচল করে দিয়েছে কর্তৃপক্ষ । ফলে পাবনাসহ দেশের উত্তর-পশ্চিমালের যাত্রীরা আরিচা ঘাটে এসে আটকে পড়েছে। বাধ্য হয়ে এসব যাত্রীদেরকে রাত্রী যাপন করা ছাড়া আর কোন উপায় নাই। এসময়ে  যাত্রীরা খাবার সংকট, পয়ঃনিস্কাসনসহ নানা ধরনের সমস্যায় পড়তে হচ্ছে। বিশেষ করে শিশু ও নারী যাত্রীদেরকে বেশী অসুবিধায় পড়তে হচ্ছে। 

সরজমিনে বৃহস্পতিবার সন্ধ্যার পর আরিচা লঞ্চ ঘাট এলাকায় যাত্রীরা তাদের সাথে থাকা ব্যাগ, শিশু সন্তানদেরকে নিয়ে নদী পারা-পারের অপেক্ষায় রাস্তার উপর মাটিতে বসে থাকতে দেখা গেছে। সকাল না হওয়া পর্যন্ত এসব যাত্রীরা পারাপার হতে পারবে না বলে জানা গেছে। এমতবস্থায় আরিচা ঘাটেই রাত্রী যাপন করতে হবে এসব যাত্রীদেরকে। এদিকে যাত্রীদেরকে নিরাপত্তা দেওয়ার জন্য ঘাট এলাকায় পুলিশ মোতায়েন করা হয়েছে।  

পাবনাগামী যাত্রী ওমর ফারুক জানান, তিনি একজন গার্মেন্টস কর্মী। তার স্ত্রী এবং সন্তানদেরকে নিয়ে বেলা ৩ টায় নবীনগর থেকে রওয়ানা দিয়ে সন্ধ্যা সাড়ে ৭টায়  আরিচা ঘাটে এসে পৌঁছান। সারা রাস্তায় যানজটের কারণে দেড় ঘন্টার রাস্তা আসতে তার সময় লেগেছে সাড়ে ৪ ঘন্টা। যে কারণে আরিচা ঘাটে এসে তাকে আটকে পড়তে হয়েছে। এ অবস্থায় পরিবার-পরিজন নিয়ে তাকে আরিচা ঘাটে রাত্রী যাপন করা ছাড়া কোন উপায় নেই বলে তিনি জানান। 

পাবনার ইশ্বর্দীগামী যাত্রী হাসেম আলী বলেন, নবীনগর থেকে আরিচা ঘাটে আসতে মাত্র দেড় থেকে দুই ঘন্টা সময় লাগে। সে হিসেবে তিনি বেলা তিনটায় নবীনগর থেকে বাসে উঠেন। কিন্তু রাস্তায় যানজটের কারণে তিনি রাত ৮টায় এসে আরিচা ঘাটে পৌঁছান। রাস্তায় যানজট না হলে অনায়াসে নদী পার হতে পারতেন বলে তিনি জানান। 

হাসেম, ফারুকের মতো অসংখ্য যাত্রী আটকে পড়েছে আরিচা লঞ্চ ঘাটে। আরিচা ঘাটেই এখন রাত্রী যাপন করতে হবে এসব যাত্রীদেরকে। এ পরিস্থিতিতে আরিচা-কাজিরহাট নৌরুটে ফেরি সার্ভিস চালুর দাবী জানান ভুক্তভোগী যাত্রীরা। 

আরিচা লঞ্চ মালিক সমিতি’র সভাপতি আলহাজ্জ্ব আব্দুর রহিম খান জানান, যাত্রীদের নিরাপত্তার কথা ভেবে রাতের বেলায় আরিচা-কাজিরহাট নৌরুটে লঞ্চ চলাচল বন্ধ রাখা হয়েছে। সকাল না হওয়া পর্যন্ত উক্ত নৌরুটে লঞ্চ চলাচল বন্ধ থাকবে বলে তিনি জানান।

শিবালয় থানার ওসি ফিরোজ কবির জানান, রাতে লঞ্চ চালানো খুবই ঝুকিপূর্ণ এ ব্যাপারে তাদের কাছে কোন নির্দেশনা নাই। তবে ঘাটে আটকে পড়া যাত্রীদের নিরাপত্তা দেওয়ার জন্য পুলিশ মোতায়েন করা হয়েছে। 

 

 


এশিয়ান টাইমস্/এমজেডআর


এ জাতীয় আরো খবর