রবিবার, সেপ্টেম্বর ২০, ২০২০

আমজাদ হোসেনের কবিতা ‘জনপ্রতিনিধি’

  • আমজাদ হোসেন শবনম
  • ২০২০-০৮-২৫ ১৮:২৪:২৮
image

জনপ্রতিনিধি
আমজাদ হোসেন শবনম


আমি একজন তুখোর জনপ্রতিনিধি
সারাদিন পাগলা কুকুরের সাথে মল্লযুদ্ধ,
পরাস্থ হয়ে এখন ক্লান্ত আমি।

গভীর ঘুমে নিথর হয়ে পড়ে আছি কারাগারে
‘বৃদ্ধজন কল্যাণ’আমার পায়ে মাথা ঠুকে,
প্রশস্ত দু’হাত জোড় করে কাতর মিনতি জানায়,
আপনি আমার মা-বাপ আমাকে অস্বীকার করবেন না।

আমার রাজনৈতিক ক্রিয়াকল্যাণে অস্থির জনতা,
পথেঘাটে নিরীহ নাগরিক বলী হয়, যুবতী ইজ্জত হারায়।
ক্রসফায়ারে তালিকাভূক্ত সন্ত্রাসী মৃত্যুর সাথে পাঞ্জা লড়ে,
এক সময় নিথর হয়ে যায়।

‘দ্বিগম্বর মানবতা’ খোলা জানালা দিয়ে চুপিসারে ঘরে ঢুকে;
আমি ওকে নিজের অবয়ব ভেবে লজ্জায় মুখ লুকিয়ে ফেলি।
সে খুব চেনা কণ্ঠে তার আকুতি জানায়।
আমাকে এভাবে জনসম্মুখে দাঁড় করিয়ে কি হয়?
আমি তো আপনারই হাতের নিপুন হাতিয়ার।

ঘোর অমবস্যায় ঘুটঘুটে অন্ধকারে আমি বেড়িয়ে পড়ি
খলিফা ওমরের মতো দুঃখ দুর্দশা খুঁজতে গণমানুষের,
বিকলাঙ্গ পথঘাট আমাকে ঘুরে দাঁড়ায়।

আমার চতুর্দিকে শিকারী কুকুরের মত দেরক্ষীরা ঘুরে দাঁড়ায়.
আমি অবনত মস্তকে আমার কীর্তি কলাপ খুঁজতে থাকি।
দু’হাতে আমার অবাদ্ধ হৃদপিণ্ডটা চেপে ধরে গড়িয়ে পড়ি।
তারপর আমাকে আবিষ্কার করি হাসপাতালের শুভ্র বিছানায়।

ততক্ষণ আমার চারিদিকে স্বজনদের অনুচ্চ স্বরে আহাজারী,
করিৎকর্মা নেতাকর্মীদের অসহ্য ভীড়,
অথচ, আমার ভেতরের শত্রুতার শিকার আমি।

কোন লোক নেই, কোন অস্ত্র নেই, কোন পথ নেই তাদের ঠেকাবার।
আমি নিজের কৃতকর্মের হিসেব কষতে থাকি,
একে একে প্রাণে প্রতিধ্বনিত হতে থাকে ওদের আর্তকণ্ঠ
এইসব, মানবতা, দুঃখ,কষ্ট, দারিদ্র,দুর্দশা, আড়ষ্টতা।

এসকল রসিকতা আমারই নিজ হাতে গড়া। আমি জননেতা।

 

 

 

এশিয়ান টাইমস্/এমজেডআর


এ জাতীয় আরো খবর