সোমবার, অক্টোবর ২৬, ২০২০

কক্সবাজার সমুদ্র সৈকতে পর্যটকদের বাঁধভাঙা উচ্ছ্বাস

  • অনলাইন ডেস্ক
  • ২০২০-০৯-২৫ ২০:৫৮:৪০
image
ছবি : সংগৃহীত।

বৈরী আবহাওয়ার মাঝেও বিশ্বের দীর্ঘতম সমুদ্র সৈকত কক্সবাজারে পর্যটকের উপচে পড়া ভিড়। সাপ্তাহিক ছুটির দিন হওয়ায় সৈকতের সবকটি পয়েন্টে পর্যটকের বাঁধভাঙা উচ্ছ্বাস। তারা বলছেন, করোনায় ঘরবন্দি জীবন থেকে মুক্ত সৈকতে এসে নতুন করে প্রাণ পেয়েছেন তারা। সাগর উত্তাল থাকায় তীরে সার্বক্ষণিক দায়িত্ব পালন করছেন লাইফ গার্ড কর্মীরা।

বৈরি আবহাওয়া, উত্তাল সাগর। হঠাৎ বৃষ্টি আবার রোদ। এর মধ্যেই দেশের দূর-দূরান্ত থেকে ছুটে আসছেন পর্যটকরা। সবাই মেতেছেন সৈকতের নোনাজলে।

সৈকতের ঢেউ, বালিয়াড়িতে নিজেকে স্মরণীয় করতে ফ্রেমে বন্দিতে ব্যস্ত সবাই। পর্যটকরা বলছেন, দীর্ঘ সময় পর করোনার ঘরবন্দি জীবন থেকে মুক্ত সৈকতে যেন প্রাণ ফিরেছেন।

এক পর্যটক বলেন, শরীয়তপুর থেকে আমরা এসেছি। এখানে এসে খুব ভাল লাগতেছে। এখানে এসে মনে হয় না যে বাংলাদেশে করোনা আছে।

আরেক পর্যটক বলেন, করোনার কারণে দীর্ঘদিন বন্ধ থাকার পর একটা রিফ্রেশমেন্টের জন্য কক্সবাজার এসে ভালই লাগছে।

পর্যটকদের আগমনের উপর নির্ভর করে সৈকতের বালিয়াড়িতে রয়েছে সহস্রাধিক শামুক-ঝিনুক ও বার্মিজ পণ্যের দোকান। তবে বৈরি আবহাওয়ার কারণে বেচা-বিক্রিতে সমস্যা হচ্ছে বলে জানালেন দোকানিরা।

আর লাইফ গার্ড কর্মীরা জানিয়েছেন, ৩ নম্বর সতর্ক সংকেত থাকায় পর্যটকদের সমুদ্র স্নানে সার্বক্ষণিক সতর্ক তারা।

কক্সবাজার সী-সেইভ লাইফ গার্ড ইনচার্জ মোহাম্মদ সিরু বলেন, আমরা লাইফগার্ড কর্মীরা সর্বদা সতর্কতার সঙ্গে টুরিস্টদের নিরাপত্তা দেয়ার চেষ্টা করতেছি। আমরা সর্বদা প্রস্তুত আছি যদি কোনো ধরণের দুর্ঘটনা হয় আমরা লাইফগার্ড কর্মী তাৎক্ষণিক ব্যবস্থা নিব। 

করোনা পরিস্থিতিতে দীর্ঘ ৫ মাস বন্ধ থাকার পর গত ১৭ আগস্ট উন্মুক্ত করে দেয়া হয় সৈকতসহ পর্যটন স্পটগুলো।

 

 

 

এশিয়ান টাইমস্/এমজেডআর


এ জাতীয় আরো খবর