রবিবার, নভেম্বর ২৯, ২০২০

বেসিস আউটসোর্সিং অ্যাওয়ার্ড ২০২০ পেলেন পাবনার কৃতি সন্তান ইমতিয়াজ ইবনে আলম

  • শিশির মাহমুদ, পাবনা
  • ২০২০-১০-২১ ২৩:০৪:৪২
image

দেশের আইসিটি সেক্টর ও আউটসোর্সিংয়ে রপ্তানি আয়ের ক্ষেত্রে অসাধারণ অবদানের স্বীকৃতি স্বরুপ বেসিস আউটসোর্সিং অ্যাওয়ার্ড ২০২০-এ জেলা ক্যাটাগরিতে পাবনা জেলা থেকে পুরস্কৃত হয়েছেন ঈশ্বরদীর কৃতি সন্তান ইমতিয়াজ ইবনে আলম।

তথ্যপ্রযুক্তি খাতের বিভিন্ন বিভাগে উদ্ভাবনী উদ্যোগকে উৎসাহিত করতে ৮৭ ব্যক্তি ও প্রতিষ্ঠানকে অ্যাওয়ার্ড দিয়েছে বেসিস। 
রেডিসন ব্লু ঢাকা ওয়াটার গার্ডেন হোটেলে শনিবার এই ‘বেসিস আউটসোর্সিং অ্যাওয়ার্ড ২০২০’ প্রদান করে বেসিস বা বাংলাদেশ অ্যাসোসিয়েশন অব সফটওয়্যার অ্যান্ড ইনফরমেশন সার্ভিসেস। এটি ছিল ৬ষ্ঠ আয়োজন।

এতে আউটসোর্সিং প্রতিষ্ঠান বিভাগে ৭টি, স্টার্টআপ বিভাগে ৭ টি, এক্সপোর্ট এক্সিলেন্স বিভাগে ১৬টি, জেলা পর্যায়ে ৫৪টি  এবং ব্যক্তি নারী বিভাগে ৩টি পুরস্কার দেয়া হয়। 

অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথির বক্তব্যে প্রধানমন্ত্রীর বেসরকারি শিল্প ও বিনিয়োগ বিষয়ক উপদেষ্টা সালমান ফজলুর রহমান বলেন, বর্তমানে ৩৮০০ ইউনিয়নে ফাইবার অপটিক্যাল সেবা দেওয়া হয়েছে। বাকি ইউনিয়নগুলোতে দ্রুত এই সুবিধা দেওয়া হবে। সারা বিশ্বে যে হারে প্রযুক্তির উত্তরোত্তর বিকাশ ঘটছে, তার সাথে তাল মিলিয়ে আমাদেরও স্কিল ডেভেলপমেন্টের প্রতি মনোযোগ দিতে হবে, যাতে প্রতিযোগিতায় আমরা পিছিয়ে না পরি। শুধু রপ্তানি নয়, আমাদের দেশের ডিজিটাল চাহিদা মেটানোর প্রতিও  সমান জোর দিতে হবে। ‘তাই সরকার দেশকে আইটি সেক্টরে এগিয়ে নিতে দেশের প্রতিটি জেলায় আইটি সেন্টার গড়ে তুলছে’ বলেন তিনি। 

বিশেষ অতিথির বক্তব্যে তথ্যপ্রযুক্তি প্রতিমন্ত্রী জুনাইদ আহমেদ পলক বলেন, ‘আজ থেকে ৫০ বছর আগে বঙ্গবন্ধু বলে গেছেন ঢাকা মানেই বাংলাদেশ নয়। ঢাকার বাইরে যে হাজার হাজার গ্রাম আছে, সেই গ্রামের উন্নয়ন করলেই বাংলাদেশের উন্নয়ন হবে। প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা বঙ্গবন্ধুর সেই বিকেন্দ্রীকরণে বাংলাদেশকে এগিয়ে নিয়ে যাচ্ছেন। আইটি ফ্রিলান্সারদের আত্মপরিচয় সংকট কাটিয়ে তুলতে আইসিটি ডিভিশন থেকে ভার্চুয়াল কার্ড প্রদান করা হবে এবং কার্ড গ্রহণকারীরা নানা ধরনের সুযোগ-সুবিধা পাবেন।’

বিশেষ অতিথির বক্তব্যে ডাক, টেলিযোগাযোগ ও তথ্যপ্রযুক্তি মন্ত্রণালয়ের সংসদীয় স্থায়ী কমিটির চেয়্যারম্যান এ কে এম রহমতুল্লাহ বলেন, ‘১৯৭৪ সালে মার্কিন আন্ডার-সেক্রেটারি অব স্টেট, উরাল এলেক্সিস জনসন বলেছিলেন বাংলাদেশ একটি বাস্কেট কেস! অর্থ হচ্ছে বাংলাদেশ স্বাধীন হলেও এমন একটি দেশ, যে দেশকে যাই দেওয়া হোক না কেন, তা থাকবে না। কিন্তু  আজকে সেই দেশ ১৬ কোটি মানুষের সহযোগিতায় প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার নেতৃত্বে ডিজিটাল বাংলাদেশ হিসেবে ক্রমাগত অগ্রগতির পথে এগিয়ে যাচ্ছে। 


বেসিসের সভাপতি সৈয়দ আলমাস কবীর বলেন, ‘বর্তমানে তৈরি পোশাক শিল্পে বিশ্বে দ্বিতীয় অবস্থানে রয়েছে বাংলাদেশ। কিন্তু চতুর্থ শিল্প বিপ্লবের ফলে আমাদের এই সস্তা শ্রমের সুবিধা আর থাকবে না। শুধু গার্মেন্টস খাতের উপরে নির্ভর হয়ে পড়ে থাকলে হবে না বরং মেধাবী কয়েকজনকে একত্রিত হয়ে একটি ছোট আউটসোসিং কোম্পানি গঠন করে মিলিয়ন ডলার অর্জন করার জন্য তিনি প্রতিযোগীদের প্রতি আহবান জানান। ‘আইটি ইন্ডাস্ট্রিতে যদি ইনভেস্টমেন্ট বাড়ানো যায়, তাহলে আইসিটি সেক্টর দিয়ে বাংলাদেশের নাম সমগ্র বিশ্বে উজ্জ্বল হবে’ বলেন তিনি। 

অনুষ্ঠানে আরও বক্তব্য রাখেন, বেসিস আউটসোর্সিং অ্যাওয়ার্ড ২০২০-এর আহবায়ক রাশাদ কবির, এলআইসিটির প্রকল্প পরিচালক ও ডিজিটাল নিরাপত্তা এজেন্সির মহাপরিচালক মো. রেজাউল করিম, বেসিসের জ্যেষ্ঠ সহ-সভাপতি ফারহানা এ রহমান এবং বেসিস আউটসোর্সিং অ্যাওয়ার্ড ২০২০ এর প্রধান বিচারক ও বেসিসের সাবেক সভাপতি রফিকুল ইসলাম রাওলি এবং ব্যাংক এশিয়ার সিনিয়র এক্সিকিউটিভ ভাইস প্রেসিডেন্ট  জিয়া আরফিন। এছাড়া অনুষ্ঠানে বেসিসের প্রাক্তন সভাপতি এস এম কামাল,বেসিস সহ-সভাপতি (প্রশাসন) শোয়েব আহমেদ মাসুদ, বেসিস সহ-সভাপতি (অর্থ) মুশফিকুর রহমান এবং ব্যাংক এশিয়ার ডেপুটি ম্যানেজিং ডিরেক্টর এস এম ইকবাল হোসেন উপস্থিত ছিলেন।

 

 


  
এশিয়ান টাইমস্/এমজেডআর


এ জাতীয় আরো খবর