মঙ্গলবার, নভেম্বর ২৪, ২০২০

এভারেস্টের উচ্চতা ঘোষণার ব্যাপারে একমত নেপাল ও চীন

  • আন্তর্জাতিক ডেস্ক
  • ২০২০-১১-১৩ ২২:১৪:১৭
image

 

এভারেস্ট শৃ্ঙ্গের উচ্চতা ঘোষণার ব্যাপারে বড় ধরনের অগ্রগতি হয়েছে। নেপাল ও চীনের কর্মকর্তারা সরকারিভাবে উচ্চতা ঘোষণার ব্যাপারে ঐক্যমতে পৌছেছেন। 

দুই দেশ একমত হওয়ায় বিশ্বের সবচেয়ে উঁচু পর্বত চূড়ার নতুন উচ্চতাই শুধু ঘোষিত হবে না, রক-হাইট না স্নো-হাইট কোনটিকে পর্বতের প্রকৃত উচ্চতা ধরা হবে তা নিয়ে গত ১৫ বছর ধরে দুই দেশের মধ্যে চলা বিতর্কেরও অবসান হবে।

নেপালের ভূমি ব্যবস্থাপনা বিষয়ক মন্ত্রী পদ্ম আরিয়াল এই পত্রিকাকে বলেন, দুই সরকারই এভারেস্টের উচ্চতা পরিমাপের কাজ শেষ করেছে।

নতুন উচ্চতার ব্যাপারে কর্মকর্তারা মুখ খুলছেন না। তবে দুই পক্ষই তাদের উপাত্ত বিশ্লেষণের কাজ শেষে সেগুলোর ফলাফল বিনিময় করেছে। আরিয়াল বলেন, পারস্পরিক বিশ্লেষণে উভয়পক্ষেরই একই হিসাব এসেছে। সবচেয়ে গুরুত্বপূর্ণ বিষয় হলো উভয় পক্ষ শৃঙ্গে বরফের পুরুত্ব যোগ করে এভারেস্টের উচ্চতা নির্ণয়ের ব্যাপারে একমত হয়েছে।

নেপাল জরিপ বিভাগ জানায়, ভারত, আমেরিকা ও ইউরোপিয়ান জরিপ দল বিভিন্ন সময়ে হিমালয়ের উচ্চতা নিরূপন করেছে। কিন্তু ২০১৫ সালে প্রবল ভূমিকম্পের পর এভারেস্ট শৃঙ্গের উচ্চতা হেরফের হতে পারে বলে সন্দেহ দেখা দিলে নতুন করে পরিমাপের প্রয়োজন হয়ে পড়ে।

২০১৭ সালে এই পরিমাপের কাজ শুরু করে নেপাল। গত বছর নেপালে চীনের প্রেসিডেন্ট শি জিনপিং সফরের পর তারাও কাজটি করে। ওই সফরের সময় দুই পক্ষ যৌথভাবে এভারেস্টের উচ্চতা সরকারিভাবে ঘোষণার ব্যাপারে একমত হয়। 

এই প্রচেষ্টায় নেপাল জরিপ বিভাগের খরচ হয়েছে ১.৩ মিলিয়ন ডলার। এতে কাজ করেছে ছয়টি আন্তর্জাতিক প্রতিষ্ঠান।

২০০৫ সালে একটি চীনা অভিযাত্রী দল পর্বতের উচ্চতা পরিমাপ করে ঘোষণা করে যে এটা হলো ৮,৮৮৪.৪৩ মিটার (২৯,০১৭.১৬ ফুট)। চীনা কর্তৃপক্ষ জানায় যে তারা শুধু বরফের নিচে থাকা শিলার উচ্চতা পরিমাপ করেছে কারণ বরফের উচ্চতা সময়ে সময়ে পরিবর্তন হয়।

কিন্তু এর সঙ্গে দ্বিমত করে নেপাল। বিশ্বব্যাপী গ্রহণযোগ্য এভারেস্টের হলো ৮,৮৪৮ মিটার (২৯,৯২৮ ফুট)। এই উচ্চতা চীনের পরিমাপ করা রক-হাইটের চেয়ে প্রায় চার মিটার বেশি। ফলে নেপাল তা প্রত্যাখ্যান করে।

হিমালয় পরিমাপের সঙ্গে যুক্ত এক কর্মকর্তা এই পত্রিকাকে বলেন, এখন চীনারাও তা মেনে নিয়েছে। তবে হিমালয়ের রক-হাইটও ঘোষণা করা হবে কিনা তা স্পষ্ট নয়।

চীনা দূতাবাসের এক মুখপাত্র বলেন, শিগগিরই যৌথ ঘোষণা আশা করা হচ্ছে। তিনি বলেন, আমরা শিগগিরই যৌথভাবে স্নো-হাইট ঘোষণা করবো। সুনির্দিষ্ট ব্যবস্থাপনার নিয়ে দুই পক্ষ ঘনিষ্ঠ যোগাযোগ রক্ষা করে চলেছে। সূত্র: কাঠমান্ডু পোস্ট।

 

 

 

এশিয়ান টাইমস্/এমজেডআর


এ জাতীয় আরো খবর