রবিবার, জানুয়ারী ২৪, ২০২১

এলাকায় না থেকে ২০ বছর যাবৎ কাজীর কার্যক্রম করছে মতিন ফকির

  • নুরুল হক রুনু, মদন (নেত্রকোণা)
  • ২০২০-১১-২৩ ১৯:১৩:৪৭
image
ছবি: কাজী মতিন ফকির।

সরকারি নিয়মকানুন তোয়াক্কা না করে, ঢাকায় বসে দীর্ঘ ২০ বছর যাবৎ নিকাহ রেজিষ্ট্রারের (কাজী) কার্যক্রম চালিয়ে যাচ্ছেন উপজেলার নায়েকপুর ইউনিয়নের কাজী মোঃ মতিন ফকির। এ ব্যাপারে অত্র ইউনিয়নের বাসিন্দারা বিভিন্ন কর্তৃপক্ষের বরাবার একটি লিখিত অভিযোগ দায়ের করেছেন। 

অভিযোগে জানা যায়, মতিন ফকির ২০০০ইং সালে ৭নং নায়েকপুর ইউনিয়নে কাজী হিসেবে নিয়োগ প্রাপ্ত হন। নিয়োগের পর থেকেই তিনি ঢাকার মহাখালী এলাকায় পরিবার পরিজন নিয়ে স্থায়ী ভাবে বসবাস করছেন। ইউনিয়নে তিনি নিয়মিত আসেন না। ইউনিয়নের বিবাহ ও তালাকের কাজ অন্যলোকের মাধ্যমে সম্পন্ন করান। এতে করে অত্র ইউনিয়নের লোকজন তার সেবা থেকে বঞ্চিত হচ্ছে। কাজীর শ্যালক আতাউর  জানান, আমিই কাজী সাহেবের কাজ সমাধান করি। উনি নিয়মিত আসেন না। উনি মহাখালীতে ব্যবসা করেন। কাজীর কাজ তো সব সময় করতে হয় না। 

নিকাহ রেজিষ্ট্রার (কাজী) মোঃ মতিন ফকির অভিযোগ অস্বীকার করে  জানান, আমি ২০০০ সাল থেকে অধ্যাবধি এ ইউনিয়নে কাজ করছি। বিয়ে হলেই আমি এলাকায় আসি। 

এ ছাড়া উক্ত কাজী সাহেবের বিরুদ্ধে ব্রাহ্মণবাড়িয়ার আশুগঞ্জ উপজেলার মোঃ সফিকুল ইসলাম গত ৫ অক্টোবর ২০২০ ইং তারিখে দূর্নীতি দমন কমিশন চেয়ারম্যান বরাবর একটি লিখিত অভিযোগ দায়ের করেছেন। তার এমন অনৈতিক কার্যক্রম নিয়ে এলাকাবাসীর মধ্যে ক্ষোভের সৃষ্টি হয়েছে। এলাকার সচেতন মহল উর্ধ্বতন কর্তৃপক্ষের আশু হস্তক্ষেপ কামনা করছেন। 

ইউপি চেয়ারম্যান আতিকুর রহমান রোমান জানান, কাজী সাহেব এলাকায় থাকেন না। ঢাকায় বসে উনার প্রতিনিধির মাধ্যমে এলাকার কাজ করেন। এতে এলাকায় অনেক সমস্যা সৃষ্টি হয়েছে। এ কাজীর নিয়োগ বাতিল করে নতুন কাজী নিয়োগ করার জন্য জোর সুপারিশ করছি।

জেলা রেজিষ্ট্রার খন্দকার জামিলুর রহমান জানান, নিকাহ রেজিষ্ট্রারের কাজ নিজেই করতে হবে। ভাড়া করা লোক দিয়ে এ কাজ করা যাবে না। কাজী মতিন ফকির যদি নিজে নিকাহ রেজিষ্ট্রার না করে অন্যলোকের মাধ্যমে করায় তবে অভিযোগ পেলে তদন্ত পূর্বক ব্যবস্থা গ্রহণ করা হবে। 

 

 


এশিয়ান টাইমস্/এমজেডআর


এ জাতীয় আরো খবর